মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

মুক্তিযুদ্ধে রায়পুরা

 

মুক্তিযুদ্ধে রায়পুরা

 

 

আজন্ম  লালিত মুক্তির স্বাদ ‘‘বন্ধনহীন মুক্ত স্বাধীন ’’ সেই সুপ্রিয় স্বাধীনতার অব্যবহিত দুই যুগের সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে যখন কোন ছেলে , তার মা , অথবা তার বাবার কণ্ঠে চিৎকার  ধ্বনিত হয়ে উঠে , ভাত দাআজন্ম  লালিত মুক্তির স্বাদ ‘‘বন্ধনহীন মুক্ত স্বাধীন ’’ সেই সুপ্রিয় স্বাধীনতার অব্যবহিত দুই যুগের সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে যখন কোন ছেলে , তার মা , অথবাতার বাবার কণ্ঠে চিৎকার  ধ্বনিত হয়ে উঠে , ভাতও । কাপড় দাও । ইজ্জত বাঁচাও ! তখন স্বভাবতই স্বাধীনতার  মানে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর হয়ে ওঠে । প্রশ্ন জাগে , এর জন্যই কি দেশ  স্বাধীন করেছিলাম ?

অতীত স্মৃতির পাতাগুলো উল্টাতে উল্টাতে মনে পড়ে গা শির শির করা ভয়ঙ্কর ভয়ঙ্কর সব কথা ।সেই ’৫২ ’৬৯ ’৭০। কানে বাজে একাত্তরের ৭ ই র্মাচের জনাকীর্ণ রেসকার্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেক মুজিবুর রহমানের বজ্রকন্ঠ-‘ এবারের সংগ্রাম মুুক্তির সংগ্রাম , এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম ।’

শাসন, মোষণ আর বঞ্জনার ঘৃণিত কলঙ্গিত অধ্যায়কে লালসূর্য্য ও সবুজ তৃণ দিয়ে ঢেকে ফেলএত আগুন খেলার সোনার বাংলা হয়ে উঠলো অগ্নি উত্তাল । তরঙ্গ ধেয়ে চললো বাংলাদেশের এক প্রামত্ম থেকে অন্য প্রামেত্ম। ২৫ মে সার্চের কালো রাত্রি  আঁধার  মুক্ত করতে পতঙ্গের মতো ঝাঁপিয়ে পড়লো বীর বাঘা বাঙালী ; সমত্মান সমত্মতি আনলো ,সঞ্জিবনী সুধা ঢেলে দিলো কর্ণ কূহরে ।

বাংলাদেশের আবাল বৃদ্ধ বণিতা ঝাঁপিয়ে পড়লো হাহিনীর বিরম্নদ্ধে । বর্তমান নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার পশ্চিমাঞ্চলের সাহসী মানুষ গর্জে উঠলো । স্বাধীনতার অগ্নি সমত্মান রায়পুরাবাসীর প্রাণপ্রিয় স্বাধীনতা সংগ্রাম জঙ্গীরম্নপ ধারণ করলো । গেয়ে উঠলো গান -

‘জাগো অনশন বন্দী যত

জগতের লাঞ্ছিত ভাগ্যাহত

জাগো’’।

রায়পুরার দাসাল সমত্মানরা  এতো বেশি সংখ্যায় ভারতের ট্রেনিং শিবিরে যায় যে ভারতীয়রা রায়পুরাকে একটি জেলা হিসেবে প্রায়শই ভুল করতে থাকে । যাহোক রায়ীপুরা থানার মুক্তিযুদ্ধ যারা পরিচালনা করেন তাঁরা হলেন এ্যাডভোকেট আফতাব উদ্দিন ভুঞা , রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু ও আলহাজ্ব গয়েছ আলী মাস্টার । গয়েছ আলী মাস্টার রায়পুরা থানা মুক্তিযোদ্ধাদের কামান্ডার ছিলেন । রায়পুরার আরেক কৃতি সমত্মান কর্নেল নূরম্নজ্জামান ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সেক্টর কমান্ডার । বীরশ্রেষ্ঠ পস্নাইট লেঃ মতিউর রহমান ও অবদান সূর্যসমত্মান । এছাড়া রায়পুরার আরো অনেকে মুক্তিযুদ্ধে দুঃসাহসী অবদান রাখেন । রায়পুরা থানার বিভিন্ন স্থানে হানাদার বাহিনীর সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রত্যক্ষ যুদ্ধ হয়েছে । রায়পুরা

থানার যে সমসত্ম স্থানে মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়েছে এর বেশির ভাগই রায়পুরার পশ্চিম  অঞ্চলে , হাটুু ভাঙ্গা, আমিরগঞ্জ , বাদুয়ারচর রেলসেতুর পাশে । মুক্তিযুদ্ধের মাঝামাঝি সময়ে বাদুয়ার চর রেলসেতু মুক্তিযোদ্ধারা  মাইনের সাহায্যে উড়িয়ে দেয়। এতে পাক বাহিনী মারাত্মক বাধার সস্মুখীন হয় । এর কিছুদিন পর রামনগর রেলসেতুও মুক্তিবাহিনী মাইনের সাহায্যে উড়িয়ে দেয় । হাঁটুভাঙ্গা বর্তমানে রেলস্টেশনের নিকট পাবাহিনীর সঙ্গে মুক্তবাহিনীর জোয়ানদের সামানাসামনি যুদ্ধ বাঁধে ।এতে পাক বাহিনী টিকতে না পেরে হেরে যায় । এই যুদ্ধে রহু পাক সেনা নিহত হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণে টিকতে না পেরে পাসেনারা যকন পালিয়ে যাচ্ছিলো তখন হাঁটুভাঙ্গার জনগণ এমনকি মহিলারাও সেদিন যার যা কিছু আছে তা দিয়ে পিটিয়ে বাকুপিয়ে মক্রসেনাদের হত্যা করেছে । আমাদের মুক্তিসেনাদেরও কিছু সাহসী  তরম্নণসহ নিরীহ মা, বোন , দেশের জন্য নিজের জীবন বিলিয়ে দিয়ে শহীদ হয়েছেন । স্বাধীনতা সংগ্রামের সময়ে বেশীর ভাগ মুক্তিযোদ্ধাই শহীদ হয়েছেন পাকসেনাদের সহযোগী দালাল ও রাজাকাদের হাতে।তৎকালীন রায়পুরা থানা মুক্তিযুদ্ধের র্সবাধিনায়ক আলহাজ্ব আলী মাস্টারের সাথে এ ব্যাপারে  আলাপ করলে তিনি বললেন , আমার মাস্টারি জীবনের সবচেয়ে বেদনাদায়ক ইতিহাস হলো এইমুক্তিসংগ্রাম । মুক্তিযুদ্ধের কথা মনে হলেই  আমার মন দুঃক ভারাক্রান্ত হয়ে উঠে । আজ আমি নিজেকে বড় অপরাধী মনে করি । কারণ , আমি আমার প্রিয় ছাত্রদেরকে তাদের বাবা মায়ের কাছ থেকে মুক্তিযুদ্ধে নিয়ে গিয়েছিলাম , দেশ স্বাধীন হলে তাদের বাবা মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেবে  বলে কিন্তু দুঃখের বিষয় , দেশ স্বাধীন হবার পর যখন কিছু বাবা ও মা আমার কাছে এসে বললেন , ‘মাস্টাসাব আপনে আইছেন আমার ছেলে কই ? কবে আইব ।’ তখন আমি তাদের কোন জবাব দিতে পারিনি । আমার মনে হচ্ছিলো , আমি সবচেয়ে অপরাধী , আমি সবার চেয়ে বেঈমান ।সারা জীবন অনুশোচনা করলেও আমার প্রায়শ্চিত্ত হবে না । আজ যকন দেখি স্বাধীনতার  ২৮ বছর পর যারা জীবন দিয়ে গেল ; তাদের মা, বাবা, ভাই , বোন , ছেলে , মেয়ে ভাত ওকাপড়ের অভাবে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে , তখন আমি  ঠিক থাকতে পারিনা ।ইচ্ছা করে আর একটা মুক্তিযুদ্ধ করি । এরজন্যই কি সেদিন মুক্তিসংগ্রাম করেছিলাম? সেদিন ভেবেছিলাম ; দেশ স্বাধীন হলে , মানুষ পাকিসত্মানিদের হাত থেকে মুক্তিপাবে , মানুষ তাদের রাজনৈতিক মুক্তি পাবে । গণতান্ত্রিক মুক্তি পাবে , কিন্তু কই !আজ ও মানুষ না খেয়ে মরছে । মা, বোন , ভাতের অভাবে পথে ঘাটে ইজ্জত বিক্রি করছে; যে শিশুর লেখাপড়া করার কথা , সে শিশু ভাতের অভাবে জলের দামে শ্রম দিচ্ছে । মানুষ তার গণতামিক অধিকার হারচচ্ছে। একদিকে নগণ্য মানুষ আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ  হচ্ছে অন্যদিকে গরিষ্ঠ সংখ্যক মানুষ দিন দিন ভূমিহীন হচ্ছে।আজ দেশবাসীর কাছে আমার প্রশ্ন , এই অবস্থার কি পরিবর্তন আসবে না।

ছবি


সংযুক্তি